কানহাইয়ালালকে হত্যার দিন আরও দুজনকে হত্যা করার পরিকল্পনা ছিল রিয়াজের! কেন অসফল হল সেই পরিকল্পনা?

উদয়পুরে কানহাইয়ালাল সাহুর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নতুন তথ্য সামনে এসেছে। জানা গেছে, মোহাম্মদ রিয়াজ কানপুর থেকে ছয়টি ছুরি অর্ডার করেছিলেন। এর জের ধরে শহরে তিনজনকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। এখানে এ মামলায় আরেক ব্যক্তি মহসিনকে আটক করেছে পুলিশ। উদয়পুরের বাসিন্দা ফরহাদ শেখ ও ওয়াসিম আত্তারিকেও হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। NIA তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

বলা হচ্ছে, রিয়াজের নির্দেশেই উদয়পুরের এক ব্যবসায়ীকে হুমকি দিয়েছিলেন ফরহাদ। জানা গেছে, কানপুরেও এই বিষয়ে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে এবং জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। কানপুর হল দাওয়াত-ই-ইসলামীর একটি প্রধান কেন্দ্র, যার সদস্য ছিলেন রিয়াজ ও গাউসের পরিচিতি।

তদন্তে সামনে এসেছে, কানপুর থেকে খুনের জন্য ছয়টি ছুরি পেয়েছিল রিয়াজ। এ থেকে উদয়পুরে একদিনে তিনজনকে হত্যার পরিকল্পনা ছিল। কানহাইয়ালাল ছাড়াও, নূপুর শর্মার সমর্থনে এবং নবীকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যকারী আরও দু’জনকে হত্যা করার পরিকল্পনা ছিল।

কানহাইয়ালাল

যে দুজনকে হত্যার পরিকল্পনা ছিল, তাদের মধ্যে একজন উদয়পুরের ব্যবসায়ী। অভিযুক্ত ও তাদের সহযোগীরা উভয়েই সঠিক অনুধাবন করতে না পারায় তাদের খুন করা যায়নি। যাদের হত্যার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তারাও ভয় পেয়েছিলেন বলে জানা গেছে।

রিয়াজ তার সঙ্গীদের মগজ ধোলাই করতেন বলে জানা গেছে। রিয়াজ মানুষের মধ্যে গোঁড়ামি ছড়াচ্ছিল। হত্যাকাণ্ডের পর রিয়াজ ও গাউস যে কারখানায় ভিডিওটি করেছিলেন সেই কারখানার মালিকের সঙ্গে রিয়াজের কথোপকথনের একটি অডিও সামনে এসেছে।

এই অডিওতে রিয়াজ কারখানার মালিক শিবকে সতর্ক করছেন কেন তিনি গ্রুপ ছেড়েছেন। রিয়াজ বলেছিলেন, ভয়ের কিছু নেই। আল্লাহকে ভয় করতে হবে।

উদয়পুরের দর্জি কানহাইয়ালালকে শিরশ্ছেদ করার অভিযোগে অভিযুক্ত মহম্মদ রিয়াজ আত্তারি এবং গাউস মহম্মদ। হত্যার পর তারা দু’জনই একটি ভিডিওও করেছিলেন। নূপুর শর্মাকে সমর্থন করার জন্য কানহাইয়ালালকে খুন করা হয়েছিল। এই পুরো বিষয়টিকেও সন্ত্রাসী ঘটনার সঙ্গে যুক্ত করা হচ্ছে। এনআইএ বিভিন্ন দিক থেকে তদন্ত করছে।

অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ (ABVP) বুধবার উদয়পুরে কানহাইয়ালালের জঘন্য হত্যাকাণ্ড নিয়ে আদালত চত্বরে বিক্ষোভ দেখায়। অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবিতে ABVP কর্মীরা একটি মানববন্ধন গঠন করে । বিদ্যার্থী পরিষদের কর্মীরা প্ল্যাকার্ডে স্লোগান লিখেছিল পুলিশকে ঘুম থেকে জাগাতে, দুষ্কৃতী ও দাঙ্গাবাজদের সম্পত্তি জব্দ করতে, রাজস্থান সরকারকে সচেতন করতে। পরে নেতাকর্মীরা কালেক্টরের কাছে স্মারকলিপি দেন এবং অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here