fbpx
Home অফবিট কেন চাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করল সরকার ? অভ্যন্তরীণ ও বৈশ্বিক বাজারে...

কেন চাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করল সরকার ? অভ্যন্তরীণ ও বৈশ্বিক বাজারে এর প্রভাব কী পড়বে?

গম, আটা, চিনির পর ভারত সরকারও মূল্যস্ফীতি ঠেকাতে চাল রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছে। সরকার বলেছে, কোনও রপ্তানিকারক তার পণ্য দেশের বাইরে পাঠাতে চাইলে তাকে ২০ শতাংশ বেশি শুল্ক দিতে হবে। এমতাবস্থায় প্রশ্ন জাগে সরকার কেন এই পদক্ষেপ নিল?

আমরা যদি তথ্যের দিকে তাকাই, তবে জানা যায় যে ভারত বিশ্বের বৃহত্তম চাল রপ্তানিকারক, যদিও উৎপাদনে এটি চীনের পরেই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। মোট বৈশ্বিক রপ্তানির ৪০ শতাংশের জন্য ভারত একা দায়ী। এতে চালের পর্যাপ্ত মজুদও রয়েছে এবং দেশীয় বাজারে চালের দাম বর্তমানে প্রায় ৫ বছরের নিম্ন পর্যায়ে চলছে। এত অনুকূল পরিস্থিতি থাকা সত্ত্বেও সরকারকে চাল রপ্তানি নিষিদ্ধ করতে হয়েছে, যার সবচেয়ে বড় কারণ আবারও মূল্যস্ফীতি হয়ে উঠছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এ বছর দেশের প্রধান ধান উৎপাদনকারী রাজ্যগুলোতে প্রাক-বর্ষা ও মৌসুমি বৃষ্টিপাত খুবই কম হয়েছে। ইউপি, বিহার, পশ্চিমবঙ্গের মতো ধান উৎপাদনকারী রাজ্যে গড়ের তুলনায় ২৫ শতাংশ কম বৃষ্টি হয়েছে। কৃষি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, চলতি খরিফ মৌসুমে দেশের ধান বপনের পরিমাণ ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ কমেছে এবং এবার মাত্র ৩৮৩ দশমিক ৯৯ লাখ হেক্টর জমিতে ধান বপন করা হয়েছে। বৃষ্টি কম হওয়ায় এরই মধ্যে এলাকা কমে গেছে, ওপর থেকে ফলন কমে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এমতাবস্থায় আগামী দিনে অভ্যন্তরীণ ভোগ্যপণ্যের চালের সংকট যেন না হয় সেজন্য উদ্বিগ্ন সরকার।

rice export চাল রপ্তানি

অন্যদিকে, খুচরা মূল্যস্ফীতির হার কয়েক মাস ধরে একটানা ৬ শতাংশের উপরে রয়েছে। রিজার্ভ ব্যাঙ্কও চলতি আর্থিক বছরে কমফোর্ট জোনে আসার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছে। এর সহজ অর্থ হল ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি খাদ্য সামগ্রীর বোঝা বাড়াতে পারে এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতে চালের ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। তাই চালের দাম না বাড়াতে রপ্তানি নিয়ন্ত্রণের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

ধান চাষের জমি কমে যাওয়ায় এবং বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় ফলনও ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। নীতি আয়োগের একটি রিপোর্ট অনুসারে, দেশে বন্যার কারণে, এই খরিফ মরসুমে চালের উৎপাদন ১০ থেকে ১৫ শতাংশ কমতে পারে। পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে গত বছরের মতোই ফলন হবে।

উৎপাদন গত বছরের মতোই থাকলে ২০২২-২৩ সালে চালের উৎপাদন হবে ১১১ দশমিক ৮ মিলিয়ন টন। ১০ শতাংশ কমলে উৎপাদন হবে ১০০ দশমিক ৬ মিলিয়ন টন এবং ১৫ শতাংশ কমলে মাত্র ৯৫ মিলিয়ন টন চাল উৎপাদিত হবে। এমন পরিস্থিতিতে, উদ্বেগজনক বিষয় হল যে ২০২২-২৩ সালে ভারতে চালের মোট ব্যবহার অনুমান করা হয়েছে ১০৯ মিলিয়ন টন, যেখানে উত্পাদন তার চেয়ে কম হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ভারতের চাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার সবচেয়ে বড় প্রভাব পড়বে প্রতিবেশী ও এশিয়ার দেশগুলোর ওপর। প্রকৃতপক্ষে বিশ্বের মোট ধান উৎপাদনে এশিয়ার দেশগুলোর অংশীদারিত্বও ৯০ শতাংশ এবং এর ব্যবহারও ৯০ শতাংশ। রাইস এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিভি কৃষ্ণা রাও বলছেন, যে জাতের চালের ওপর সরকার শুল্ক আরোপ করেছে তা মোট রপ্তানির ৬০ শতাংশ। এমতাবস্থায় বিশ্ববাজারে চালের ঘাটতি হতে বাধ্য এবং এর দাম বাড়বে। তিনি বলেন, বর্তমানে বিশ্ববাজারে চালের দাম প্রতি টন ৩৫০ ডলার, যা বেড়ে ৪০০ ডলার হতে পারে।

রাও বলেছেন যে বিদ্যমান আদেশটি তুলে নেওয়ার অনুমতি দেওয়ার জন্য তিনি সরকারের কাছে আবেদন করবেন। ভারতীয় রপ্তানিকারকদের কাছে বর্তমানে প্রায় দুই মিলিয়ন টন চাল রপ্তানির আদেশ মুলতুবি রয়েছে, যা পাঠানো হয়নি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here