Pinterest

মানুষের জীবনে ভগবানের শ্রেষ্ঠতম আশীর্বাদ হল গান । গানকে পাথেয় করে মানুষ যুগে যুগে জীবনের কঠিন পথ – পরিক্রমায় জয়ী হয়েছে । গানের প্রধান উপজীব্য হল কথা, সুর তাল লয় প্রভৃতি | কিন্তু এমন গানও আছে যার সামগ্রিক আকর্ষণী শক্তির কাছে কথা ও সুরের একক ভুমিকা ম্লান হয়ে যায় । এরকমই কিছু বিশ্বজয়ী গানের কথা আজ বলতে এসেছি ।

প্রথমেই একটি কথা বলে নেওয়া দরকার —-সেটি হল এই যে,  কেবলমাত্র কথা ও সুর নিখুঁত হওয়াই গানের ক্ষেত্রে শেষ কথা নয় । এর সঙ্গে চাই কবির গান রচনায় মুন্সীয়ানা —-সুর , তাল, লয় ও কথার উপযুক্ত সমন্বয় ঘটলে তবেই তা রসিকমহলে স্থায়ী আসন গ্রহণ  করতে সক্ষম । কিন্তু এমন কিছু ক্ষেত্র আছে যেখানে গোটা গানটি উপস্থাপনার গুণে কথা হয়ে যায় গৌণ …সম্যক অর্থবহ না হওয়া সত্ত্বেও শ্রোতা ও দর্শক–মহলে তার চাহিদা প্রবল । আমি এখানে বলবো তেমনি ৫ টি গানের কথা |

৫ টি যুগোত্তীর্ণ গান

১) ‘রিদম ডিভাইন’ (Rhythm Divine)

প্রথমেই মনে আসছে এনরিক ইগলেসিয়াস – এঁর ‘রিদম ডিভাইন’ নামক সুপার ডুপার হিট গানটি। ৯০ এর দশকের হেন কোন শ্রোতা নেই এই গানের আবেদনের কাছে আত্ম সমর্পণ করেননি। এই গানটির ভিডিও , সুর, গায়কের সুকণ্ঠ গানটির অর্থকে অতিক্রম করে গেছে। সুপুরুষ এই স্প্যানিশ কণ্ঠশিল্পী এই গানটি গেয়ে রাতারাতি বিশ্বের দরবারে স্থায়ী আসন করে নিয়েছেন। শ্রোতারা এই ভিডিও টি দেখা ও শোনার জন্য বার বার বিনিদ্র রাত জেগেছেন ।

২) ‘ধক ধক করনে লাগা ’

আগেই বলেছি আজকের যুগে গান শুধু শোনা-ই হয় না , দেখাও হয়। এজন্য একটি গানের পরিবেশন শ্রোতার পাশাপাশি দর্শক কিভাবে নেবে … সেটা বিশেষ উল্লেখ্য বিষয় ।কয়েক দশক আগে হিন্দি বলিউডি সিনেমা জগতে এক নবীনা নায়িকার আবির্ভাব ঘটে যিনি আজকের প্রজন্মের উপরও তাঁর প্রভাব বিস্তারে সক্ষম হয়েছেন। অত্যাধুনিক ছায়াছবিতে আজও অতিথি শিল্পীর ভূমিকায় তিনি আবেদন-ময়ী | বলিউড ছবির পরমা-সুন্দরী , স্মিতহাস্যময়ী সেই নায়িকা হলেন শ্রীমতী মাধুরী দীক্ষিত । তাঁর লিপে একটি সুপার ডুপার গান হল ‘ধক ধক করনে লাগা’ |

৩) ‘তুমি যে আমার’

বাংলা ছায়াছবির সামগ্রিক পরিসর বিশাল এবং অতি মনোমুগ্ধকর । শুধু বাঙ্গালির কাছেই নয়,  রুচিশীলতা ও শৈল্পিক উৎকর্ষে এগুলির অধিকাংশই বিশ্বের দরবারে বিশেষ সমাদৃত । সেইসঙ্গে বাংলা ছবির দুই কিংবদন্তী শিল্পী ও জুটি মহানায়ক উত্তমকুমার ও মহানায়িকা সুচিত্রা সেন আজকের যুগের তরুণ সমাজেও সমান আকর্ষণীয়। এই জুটির অভিনয় ক্ষমতা সম্পর্কে কিছু বলার অপেক্ষা রাখে না । তাই এদের যুগল সঙ্গীতগুলিও সমানভাবে যুগোত্তীর্ণ |

উদাহরণস্বরূপ,‘হারানো সুর’ ছবি র কালজয়ী গান : ‘তুমি যে আমার ‘ |

সুচিত্রা সেনের লিপে ও গীতা দত্তের সুমিষ্ট কন্ঠের মাধুর্যে নিছক প্রেমের এই মধুচন্দ্রিমা – সঙ্গীত দর্শক হৃদয়ে আজও স্থায়ী হয়ে রয়েছে।

৪) ‘রঙ্গবতি’

আজকের অত্যাধুনিক স্যাটেলাইটের যুগেও ইতিহাস কে ভুলে থাকলে চলবে কেন? তাই ভোলা যায়না  বাংলা সাহিত্যের রোমান্টিক হিরো হাসন রাজা আর তার প্রেমের উপাখ্যান ।একাধিক গানের উপজীব্য এই চরিত্রটি যে গানটিতে প্রচ্ছন্ন ভাবে উপস্থিত সেই গানটির ও  একাধিক সংস্করণ বিদ্যমান। গানটি হল ‘ রঙ্গবতি’। এই গানটি প্রথমে ‘কোক স্টুডিও’ কর্তৃক দ্বারা পরিচালিত একটি গানে দর্শক এর নজর কাড়ে ।পরে তা চরম জনপ্রিয় হয় ’গোত্র’ ছবির একটি আকর্ষণীয় ভিডিও –র মাধ্যমে।

৫ )‘শিং নেই তবু নাম তার সিংহ’

সবশেষে যে গানটি মনে পড়ছে সেটি অমর শিল্পী কিশোরকুমার –এর কন্ঠে একটি ভীষণ মজার গান: শিং নেই তবু নাম তার সিংহ

‘ ননসেন্স ’ পর্যায়ভুক্ত এই গান টি অত্যন্ত উপভোগ্য । গায়কের পরিবেশনের গুণে এই আপাতভাবে অর্থহীন গানটিকে আজ সর্বকালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মনোরঞ্জনকারী গান বলে গণ্য করা  যেতে পারে ও এটি বার বার দেখার ইচ্ছা জাগে গান টির পরিবেশনা ও গায়ণভঙ্গির গুণে ।এই গানটির মধ্য দিয়ে  শুধু বাংলার নয় , বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সঙ্গীতশিল্পী কিশোরকুমার তাঁর প্রিয় দর্শক ও শ্রোতৃমণ্ডলীর কাছে সুপারহিরো হয়ে উঠেছেন ।

গানের জগতের সুদীর্ঘ পরিসরের মধ্য থেকে  এই ৫টি গান দিয়ে আজকের ডালি সাজানো হল যেগুলির কথা আপাতভাবে অর্থপূর্ণ না হয়েও  রচনা, পরিবেশনা ও লেখক ও গায়কের মুন্সিয়ানার গুণে দর্শক–মনে যুগান্তকারী সৃষ্টি হিসাবে রয়ে গেছে।

আরো পড়ুন : প্রকৃত ভালবাসা চেনার উপায়