জনসংখ্যার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বেকারত্ব, কমছে কর্ম সংস্থান।এই কারণেই অনেকেই ঝুঁকছেন ব্যাবসার দিকে।ব্যবসা করার মত জায়গা থাকা সত্বেও,অনেকেই ভেবে পান না কোন ব্যবসায় কম বিনিয়োগে বেশী লাভ করা যায়।জেনে নিন টিপিস-

ব্যবসার কিছু টিপস



ক্যাফে– শহরতলীতে ক্রমশ বাড়ছে ক্যাফের চাহিদা।জায়গা থাকলে তৈরি করতে পারেন ক্যাফে/ কফিশপ।চমক রাখুন খাবারের মেনুতে, দাম রাখুন মধ্যবিত্তের আয়ত্ত্বের মধ্যে। এক্ষেত্রেও খাবারের মেনুর জন্য দেখতে পারেন বিদেশি রেসিপি। প্রচলিত চাইনিজ্, থাই খাবারের বাইরে রাখুন নতুন ধরণের খাবার। আত্মবিশ্বাস,দক্ষতা,শ্রমের দ্বারা ব্যবসা শুরু করতে চাইলে ঠিক মতো পরিকল্পনা করে নেমে পড়ুন, সাফল্য আসবে।

ব্যবসা



ফটোগ্রাফি– আপনি ফটোগ্রাফির দোকান খুলতে পারেন।তার জন্য অবশ্যই ফটোগ্রাফি সম্পর্কে জ্ঞান থাকা অত্যাবশকীয়।সেই সঙ্গে ভিডিওগ্রাফি শিখে, সেই ব্যবসাও শুরু করতে পারেন একইসঙ্গে৷ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এই ফটোগ্রাফি এবং ভিডিওগ্রাফির প্রচুর চাহিদা রয়েছে শহর থেকে গ্রাম সর্বত্র৷ তাই এই ব্যবসা আপনাকে নিরাশ করবে না৷ আর এতে উপার্জন ভালো হয়৷


ট্রাভেল এজেন্সি: বাঙালিকে যেমন খাদ্য রসিক বলা হয়,ঠিক তেমনভাবে ভ্রমণ পিপাসু জাতি হিসেবেই পরিচিত।এছাড়াও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতি বছর এ রাজ্যে বেড়াতে আসেন প্রচুর মানুষ।আপনি যদি ভ্রমণ প্রিয় হন তাহলে একজন ট্রাভেল এজেন্ট হিসাবে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার কথা ভাবতে পারেন।
বিশেষত বয়স্ক মানুষ অথবা যারা পরিবার নিয়ে ঘুরতে যান, তাঁরা সব সময়ই চান আগে থেকেই বেড়ানো সংক্রান্ত সমস্ত ব্যবস্থা করে রাখতে যাতে বেড়াতে গিয়ে কোনও সমস্যায় পড়তে না হয়। ট্রাভেল এজেন্সি ব্যবসার লাভের ফসল আসে এখান থেকেই।বেড়ানোর প্যাশন, খুঁটিনাটির প্রতি নজর, মানুষের সঙ্গে সংযোগ তৈরি করা ও ভাল সম্পর্ক বজায় রাখার ক্ষমতা এই কয়েকটি জিনিসকে পুঁজি করেই শুরু করতে পারেন আপনার পর্যটন সংস্থা বা ট্যুরিজম ব্যবসা।আপনার জায়গা ও ভালোবাসা থাকলে অতি সহজে খুলে ফেলতে পারেন ট্রাভেল এজেন্সি।

গিফট শপ: চাহিদা অনুযায়ী সামগ্রীর সমাহার ঘটিয়ে খুব সহজে ব্যাবসা শুরু করা যেতে পারে।বাজারে সবসময়ই এই ব্যাবসার চাহিদা দেখা যায়।ব্যাবসায় লাভের ভাগও প্রচুর,ঝুঁকির পরিমানও কম।একটি দোকান ভালো করে ডেকোরেশন করতে হবে। বিভিন্ন রকমের গিফট ,কার্ড,শোপিস,রকমারি পণ্য ইত্যাদি কিনে দোকান রাখতে পারেন। তা পাইকারী কিনে খুচরো বেচতে পারেন।

কসমেটিকসের ব্যাবসা: কসমেটিকসের ব্যাবসা অতীতে যেমন লাভজনক ছিল,বর্তমানেও আছে। কারন, মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেরাও নানা ধরনের
কসমেটিকস ব্যাবহার করছে তাদের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য।এখন সবাই সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে চায়। তাই এই ব্যাবসা আপনার জন্য খুবই লাভজনক হবে।

ব্যাবসা করার মত জায়গা থাকলে,এই ব্যাবসা গুলি আপনাদের লাভজনক হতে পারে।

লাভবান হলেন কি জানাবেন কমেন্ট করে।ভালো লাগলে শেয়ার করুন।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here