চাকরি ঘন ঘন পরিবর্তন করেন? তাহলে এই লেখাটি আপনার জন্য

ঘন ঘন চাকরি পরিবর্তন করার অভ্যাস (এক বছর পূর্ণ হওয়ার আগে বা প্রতি দুই-তিন বছরে) আপনার সম্পর্কে কয়েকটি মনোবৃত্তি স্পষ্ট করে। যেমন ভালো বেতনের প্রতি আকর্ষণ, দ্রুত চাকরি নিয়ে অসন্তুষ্ট হওয়া, চাকরির ব্যাপারে সিরিয়াস না হওয়া এবং কোম্পানির অর্থ ও সময় নষ্ট করার ক্ষেত্রে নিজের দায়িত্ব উপলব্ধি না করা।

এটাও সঠিক যে কোম্পানির নির্বাহীদের সঙ্গে দুর্বল সম্পর্ক, কর্মজীবনের ভারসাম্য, লাভের পেছনে ছোটা, ভালো কর্পোরেট ইমেজ বা নতুন কিছু শেখার সুযোগও দ্রুত চাকরি পরিবর্তনকারীদের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রেরণা হিসেবে কাজ করে।

যাইহোক, আপনার কর্মজীবনে অন্তত একটি সময় এমন থাকতে হবে যা প্রতিফলিত করবে যে, যখন কাজের পরিবেশ আপনার জন্য সহায়ক ছিল তখন আপনি কত ভালো পারফর্ম করেছেন। নিজেদের ঝুঁকি কমানোর জন্য কোম্পানিগুলি তাদের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় এই সম্ভাব্য বিষয়গুলি বিবেচনা করে। যেমন-

চাকরি
  • একজন কর্মচারীর ঘন ঘন চাকরি পরিবর্তনের কারণ হতে পারে চাকরির সময় কোনও ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়া অথবা কাজটি সম্পন্ন করার দায়িত্ব এড়ানো।
  • একজন কর্মচারীর উপর কখনও নির্ভর করা যায় না – যদি না চাকরি ছেড়ে দেওয়ার বাধ্যতামূলক কারণ থাকে।
  • বিশেষজ্ঞরাও একমত যে ক্যারিয়ারে বিরতি নেওয়া ইতিবাচক এবং কখনও কখনও আপনার পক্ষে ভালো । কিন্তু খুব বেশি সময়ের জন্য বিরতি নেওয়া বা ঘন ঘন বিরতি নেওয়া, আপনাকে বিপদে ফেলতে পারে। একটি সংক্ষিপ্ত সময়ের চুক্তি সম্পন্ন করা, ভ্রমণ করা, কোনও স্বেচ্ছাসেবী কাজ, কোভিডের মতো কোনও স্বাস্থ্য সমস্যা, বা আপনার নিজের ব্যবসা শুরু করার সিদ্ধান্ত – এই ধরনের ক্যারিয়ার বিরতি গ্রহণযোগ্য। পরিবর্তনশীল প্রযুক্তির কারণে, আপনি যদি নতুন কিছু শেখার বিষয়ে মনোযোগ দেন তাহলে সেটিও গ্রহণযোগ্য হবে, কারণ তা একটি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।
  • আপনি যদি অযৌক্তিকভাবে কোম্পানি সম্পর্কে নেতিবাচক কথা বলেন, তাহলে তা আপনার ইম্প্রেশনের প্রতি একেবারেই সহায়ক নয়। তাই কোম্পানি পরিবর্তনের ক্ষেত্রে পূর্ব কোম্পানির সম্মন্ধে সমস্ত নেতিবাচক বিষয় এড়িয়ে চলাই ভালো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here