দিল্লি হাইকোর্টের দুই বিচারপতির বেঞ্চ বিবাহের পর ধর্ষণ অপরাধ কি না তা বিষয়ে বিভক্ত রায় দিয়েছে। একজন বিচারক এই প্রকার ধর্ষণকে অপরাধ হিসেবে গণ্য করেছেন, অপর একজন বিচারক দ্বিমত পোষণ করেছেন, বলেছেন এটি সংবিধান লঙ্ঘন করেনি।

দিল্লি হাইকোর্টের দুই বিচারপতির একটি বেঞ্চ একে অপরের সাথে দ্বিমত পোষণ করেছে। বিষয়টি বৈবাহিক ধর্ষণ সংক্রান্ত। যার ভিত্তিতে দুই বিচারপতির বেঞ্চ দুরকম রায় দেন। হাইকোর্টের বিচারপতি রাজীব শাকধের মামলাটি অপরাধীকরণের পক্ষে ছিলেন, তাই তিনি মামলাটিকে অপরাধ হিসেবে ঘোষণা করে রায় ঘোষণা করেন। যদিও বিচারপতি হরি শঙ্কর এ বিষয়ে দ্বিমত পোষণ করেন। তিনি বলেন, এই ব্যতিক্রম, সংবিধানের 2 থেকে 375 অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করে না। তাই এটাকে তিনি অপরাধ মনে করেননি।

ধর্ষণ - Rape after marriage

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে হাইকোর্ট এ বিষয়ে আদেশ সংরক্ষণ করেন। বৈবাহিক ধর্ষণ অর্থাৎ বিয়ের পর জোরপূর্বক শারীরিক মিলন এখনও আইনে অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয় না।

প্রকৃতপক্ষে, দিল্লি হাইকোর্টে দায়ের করা পিটিশনে দাবি করা হয়েছিল যে বিয়ের পরে যদি তার স্বামী তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে মহিলার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করে তবে তাকে বৈবাহিক ধর্ষণের আওতায় আনা উচিত। আবেদনকারী এ ক্ষেত্রে বিভিন্ন দেশের উদাহরণও দিয়ে নারীর সম্মানের কথা উল্লেখ করে বলেন, অবিবাহিত নারীর সঙ্গে তার সম্মতি ছাড়া শারীরিক সম্পর্ক করা যদি অপরাধ বলে গণ্য হয়, তাহলে বিয়ের পরও ওই নারীর সাথে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক অপরাধ হিসেবেই বিবেচিত হওয়া উচিৎ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here