মোহাম্মদ জুবায়েরের আগামীকাল সুপ্রিম কোর্টে শুনানি?

মোহাম্মদ জুবায়েরকে তার টুইটের মাধ্যমে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার অভিযোগে বৃহস্পতিবার 7 জুলাই সীতাপুর আদালতে হাজির করা হয়। জুবায়েরকে ১৪ দিনের বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠিয়েছে আদালত। দায়ের করা FIR বাতিল করতে অস্বীকার করে এলাহাবাদ হাইকোর্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করার পরে সুপ্রিম কোর্ট আগামীকাল তার আবেদনের শুনানি করতে সম্মত হয়েছে। অল্ট নিউজের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ জুবায়েরকে সোমবার, 27 জুন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা এবং দাঙ্গা উসকে দেওয়ার অভিযোগে দিল্লি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল। গ্রেফতারের পর তাকে দিল্লির আদালতে পেশ করা হয়। আদালত মহম্মদ জুবায়েরের জামিন আবেদন খারিজ করে দিল্লি পুলিশকে এক দিনের হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে। এর পর প্রথমে তাকে 4 দিনের জন্য বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়েছিল, এখন তা কমিয়ে ১৪ দিনে করা হয়েছে।

মোহাম্মদ জুবায়ের বৃহস্পতিবার উত্তরপ্রদেশের সীতাপুরে গ্রেফতার পূর্ব জামিন এবং এফআইআর বাতিল চেয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছেন। জুবায়েরের আইনজীবী কলিন গনসালভেস 13 জুন এফআইআর বাতিল করতে এলাহাবাদ হাইকোর্টের অস্বীকৃতির বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন। গনসালভেস বলেন, জুবায়ের মৃত্যুর হুমকির সম্মুখীন এবং তার নিরাপত্তা নিয়ে প্রকৃত উদ্বেগ রয়েছে। শুক্রবার সেই আবেদনের শুনানি করতে রাজি হয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

মোহাম্মদ জুবায়ের

পুরো ব্যাপারটা কি?

দিল্লি পুলিশ গ্রেফতার করেছে মহম্মদ জুবায়েরকে। তার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা 153 (দাঙ্গা সৃষ্টির অভিপ্রায়ে উস্কানি দেওয়া) এবং 295A (কোন শ্রেণীর ধর্মীয় অনুভূতিকে ক্ষুব্ধ করার উদ্দেশ্যে ইচ্ছাকৃত কাজ) এর অধীনে অভিযোগ আনা হয়েছে। জুবায়েরকে দিল্লি পুলিশের IFSO (ইনটেলিজেন্স ফিউশন অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক অপারেশন) ইউনিট গ্রেপ্তার করেছিল।

তাকে 2020 সালের একটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোমবার তলব করা হয়েছিল, কিন্তু পরে 2022 সালের একটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। জুবায়েরের রিপোর্ট করা ‘টুইটার স্টর্ম’-এ জড়িত টুইটার প্রোফাইলের কথিত ভূমিকা নিয়েও তদন্ত করছে দিল্লি পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here