পর্তুগালে এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা সামনে এসেছে। এখানে বসবাসকারী 19 বছর বয়সী এক মহিলা যমজ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। চমকপ্রদ ব্যাপার হলো, দুই সন্তানের বাবাই আলাদা। চিকিৎসা বিজ্ঞানে এ ধরনের ঘটনা খুবই বিরল বলে বিবেচিত হয়।

আসলে জন্মের প্রায় আট মাস পর বাবা সন্তানদের ডিএনএ পরীক্ষা করিয়েছিলেন। রিপোর্ট এলে জানা যায় ওই ব্যক্তি মাত্র এক সন্তানের জনক। দ্বিতীয় সন্তানের বাবা অন্য কেউ। তবে শিশু দুটির চেহারা একই রকম। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলা হয় হেটেরোপ্যারেন্টাল সুপারফেকন্ডেশনের অবস্থা। এটি সমগ্র বিশ্বে হেটেরোপ্যারেন্টাল সুপারফেকুন্ডেশনের 20 তম পরিচিত ঘটনা।

যমজ সন্তান

বিশেষজ্ঞরা বলছেন এটি হেটেরোপ্যারেন্টাল সুপারফেকন্ডেশনের একটি ঘটনা, একটি বিরল অবস্থা। এতে জন্ম নেওয়া দুই যমজ সন্তানের বিভিন্ন পিতার ডিএনএ পাওয়া যায়। অস্বাভাবিক গর্ভধারণের ধরণ নিয়ে অধ্যয়নকারী ডাঃ তুলিও জর্জ ফ্রাঙ্কো বলেন, মায়ের শরীরে উপস্থিত ডিম দুটি ভিন্ন পুরুষের দ্বারা নিষিক্ত হলে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়। মহিলাও স্বীকার করেছেন যে তার দুই ভিন্ন পুরুষের সাথে সম্পর্ক ছিল। অর্থাৎ, তিনি দুটি ভিন্ন পুরুষের সাথে সম্পর্কে ছিলেন। এই কারণে শিশুদের ডিএনএ ভিন্ন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here