তামিলনাড়ুর কোয়েম্বাটুরে, 62 বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে মেয়েদের যৌন নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এই বৃদ্ধের বিরুদ্ধে 4 বছরের ব্যবধানে 9 থেকে 13 বছর বয়সী মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ রয়েছে। ৬২ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি স্কুলের কাছে একটি দোকান চালাতেন এবং সেখান দিয়ে যাওয়া বা কিছু জিনিস কেনার জন্য মেয়েদের টার্গেট করতেন। পুলিশ যখন ‘প্রজেক্ট পল্লীকুডম’ নামে একটি সচেতনতামূলক কর্মসূচি শুরু করে তখন এই ঘটনাগুলি প্রকাশ্যে আসে। এই প্রচারণার উদ্দেশ্য ছিল শিশুদের তাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত যৌন অপরাধ সম্পর্কে সচেতন করা।

এই প্রচারণার কারণে অনেক মেয়েই অনুভূতি পেয়েছে যে তাদের যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করা উচিত। ভুক্তভোগীদের মধ্যে একজন স্কুলের অধ্যক্ষকে বলেছিলেন যে স্কুলের কাছে একটি দোকান চালাতেন এমন লোকের দ্বারা তাকে হেনস্থা করা হয়েছিল। এরপর স্কুলের প্রিন্সিপ্যাল ​​অন্যান্য ছাত্রীদের কাছেও জানতে চান তাদের সঙ্গেও এমন কোনো ঘটনা ঘটেছে কি না। এতে আরও ১৪ জন মেয়ে এগিয়ে এসে তাদের অগ্নিপরীক্ষার বর্ণনা দেয়। এরপর স্কুলের প্রিন্সিপাল পুলিশের কাছে অভিযোগ করলে মহিলা থানায় ব্যবস্থা নিয়ে অভিযুক্ত নটরাজনকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার তাকে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়েছে।

যৌন নির্যাতন

কোয়েম্বাটোর গ্রামীণ এসপি ভি. বদ্রিনারায়ণ বলেছেন যে যৌন নির্যাতনের অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পকসো আইনের বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্ত নটরাজনের বিরুদ্ধে পকসো আইনের 7 ধারায় যৌন হয়রানির অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে ৮, ৯ ও ১০ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নটরাজনের বিরুদ্ধে পকসো আইনের ৬টি ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা আপনাকে জানিয়ে রাখি যে পাঞ্জাবের মোহালিতে অবস্থিত চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে আজকাল তোলপাড় চলছে। মেয়েদের গোসলের ভিডিও করায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ মামলায় এ পর্যন্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, যাদের মধ্যে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here