জাতীয় চিকিৎসক দিবসের বিশেষ উপলক্ষ্যে বলিউড তারকারা সত্যিকারের নায়কদের স্যালুট জানিয়েছেন

আজ সারাদেশে পালিত হচ্ছে জাতীয় চিকিৎসক দিবস। এমন পরিস্থিতিতে বলিউড তারকারা কেন পিছিয়ে থাকবেন? এই বিশেষ উপলক্ষ্যে বলিউড তারকারাও সেই চিকিৎসকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন যাঁরা করোনার সময় জীবনের পরোয়া না করে মানুষকে নতুন জীবন দিচ্ছেন। একইসঙ্গে রোগীদের সেবা করতে গিয়ে প্রাণ হারানো চিকিৎসকদের স্যালুট জানিয়েছেন তারকারা।

সোনাক্ষী সিনহা, শ্রুতি হাসান, শিল্পা শেঠি কুন্দ্রা, রাভিনা ট্যান্ডন, সোনু সুদ এবং দিব্যা দত্ত COVID-19 সংকটের সময় লক্ষ লক্ষ জীবন বাঁচাতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। আসুন জেনে নেওয়া যাক কে কী বললেন এবং কীভাবে চিকিৎসকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেন।

জাতীয় চিকিত্সক দিবসে, সোনাক্ষী সিনহা বলেছেন যে আমাদের চিকিত্সক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা হলেন আসল নায়ক যাঁরা এই মহামারীর সাথে নিরলসভাবে লড়াই করেছেন এবং আমাদের সবাইকে রক্ষা করেছেন। তিনি কোভিড-19 -এর বিরুদ্ধে চলমান সংগ্রামে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন এবং আমাদের সবার মধ্যে আশা জাগিয়ে তুলছেন। আমি তাদের প্রত্যেককে ধন্যবাদ জানাতে চাই মানবতার জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করার জন্য, নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করা কোনও রসিকতা নয়। যাঁরা আমাদের জন্য এতটা করেছেন তাদের সবাইকে আমি সালাম জানিয়ে কীকরে থাকতে পারি?

এই বিশেষ দিনে শিল্পা শেঠি কুন্দ্রা বলেছেন যে শুধু এই দিনেই নয়, প্রত্যেক দিনই এইভাবে তাঁদের নিরলস সাফল্যকে উদযাপন করা উচিত। তিনি কথোপকথনে বলেছেন যে গত দেড় বছরে ডাক্তাররা যে কঠোর পরিশ্রম এবং ত্যাগ করেছেন তা বর্ণনা করার মতো ভাষা নেই। আমি এই যোদ্ধাদের স্যালুট জানাই নিঃশর্তভাবে তাঁদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিশ্বকে বাঁচানোর জন্য । তাঁদের নিঃস্বার্থ এবং অক্লান্ত পরিসেবার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

 জাতীয় চিকিৎসক দিবস

দিব্যা দত্ত বলেছিলেন যে কেবলমাত্র ফ্রন্টলাইন কর্মীদের ধন্যবাদ দেওয়া যথেষ্ট নয়, ডাক্তার যাঁরা আমাদের জন্য তাঁদের জীবন উৎসর্গ করেছেন, যাঁরা করোনার সময় নিঃস্বার্থভাবে মানুষের সেবা করেছেন তাঁরাও যথেষ্ট সম্মানের দাবি রাখেন। তিনি বলেন, এটা ভাবতেও ভয় লাগে যে, তাঁরা আমাদের সাথে না থাকলে কী হতো! ঘন্টার পর ঘন্টা পিপিই কিট এবং মাস্ক পরে মানুষের যত্ন নেওয়া, জীবন বাঁচানো, অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। তাই তাঁদের ধন্যবাদ জানানোর কোনও ভাষাই যথেষ্ট নয়। তাই ডাক্তারদের প্রতি আমার অনেক শ্রদ্ধা আছে। আমি ডাক্তারদের পরিবারে বড় হয়েছি এবং আমি তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞ এবং আমার শ্রদ্ধা জানাই।

রাভিনা ট্যান্ডন বলেছেন, ‘এই কঠিন সময়ে ডাক্তাররা মানবজাতির ত্রাণকর্তা হয়েছেন। চারিদিকে এত ব্যথা কিন্তু তাঁরা সেখানেই ছিল। তিনি বলেছেন যে, তাঁরা সেই মানুষ যাঁরা সহায়ক পদক্ষেপ গ্রহণ করে, অন্য কেউ করতে পারেনি এমন সবকিছু করেছে। তারাই আসল সুপারহিরো, আমাদের ফ্রন্টলাইন কর্মী। আমি তাঁদের প্রণাম জানাই এবং তাঁদের নিঃস্বার্থ সেবার জন্য তাঁদের ধন্যবাদ জানাই।

চিকিৎসকদের ধন্যবাদ জানিয়ে সোনু সুদ বলেন, চিকিৎসকরাই প্রকৃত নায়ক। করোনার প্রথম এবং তারপর দ্বিতীয় ঢেউয়ে তিনি প্রমাণ করেছিলেন যে তিনি সেনা অফিসারদের মতো একজন ফ্রন্টলাইন হিরো যিনি লক্ষ প্রাণ বাঁচিয়েছিলেন। এই দেশে এবং সারা বিশ্বের প্রত্যেকেরই তাঁদের পরিবারকে যথাযথ সুরক্ষা প্রদান করার জন্য ডাক্তারদের প্রতি কৃতজ্ঞ হওয়া উচিত।

শ্রুতি হাসান চিকিত্সকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, ‘কোভিড -19 এর কারণে আমি খুব প্রিয় একজন বন্ধুকে হারিয়েছি, এবং আমি জানি কারা সেখানে আক্রান্তদের যত্ন নিচ্ছিলেন। এটা সহজ নয় এবং ডাক্তারদের জীবনটা কেমন হবে তা আমি কল্পনাও করতে পারি না। তাঁরা শুধু আবেগ এবং সংকল্প নিয়ে চলতে থাকেন। তারা কেবল বলেন যে তাঁরা তাঁদের কাজ করছেন, তবে এই কথাটা তাঁদের অবদানের কাছে কিছুই নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here