নিজস্ব সংবাদদাতা: তিন দফা ভোট ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে। এবার আগামীকাল রাজ্যের ৫টি জেলায় মোট ৪৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে। এই কেন্দ্রগুলিতে কে এগিয়ে আর কে পিছিয়ে থাকবে, সেই নিয়ে তর্ক-বিতর্ক চলতেই পারে। তবে নির্বাচনী পরিসংখ্যান বলছে, ওই ৪৪টি কেন্দ্রে ২০১৬ থেকে ২০১৯- ইউ ৩ বছরে প্রবলভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে বিজেপি-র ভোট। মাত্রাটা ৩ গুণেরও বেশি। আগামীকাল চতুর্থ দফায় কোচবিহার জেলার ৯টি এবং আলিপুরদুয়ারের ৫টি বিধানসভা আসনের সব ক’টিতেই ভোট হবে। এ ছাড়া দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩১টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি, হাওড়া জেলার ১৬টির মধ্যে ৯টি এবং হুগলির ১৮টির মধ্যে ১০টি আসন রয়েছে এই তালিকায়।

২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচনে এই ৪৪টি আসনের মধ্যে তৃণমূল জিতেছিল ৩৯টিতে। বিজেপি দখল করেছিল মাত্র ১টি। অন্যদিকে বামেরা পেয়েছিল ৩টি আসন। আর তাদের সহযোগী কংগ্রেস জিতেছিল ১টিতে। কিন্তু ২০১৯-এর লোকসভা ভোটের বিধানসভা ভিত্তিক ফলের হিসাবে তৃণমূল ওই ৪৪-এর মধ্যে ২৫টি এবং বিজেপি ১৯টি কেন্দ্রে এগিয়ে রয়েছে। আর আলাদা ভাবে লড়ে বাম-কংগ্রেসের ঝুলি একেবারে শূন্য। আপাতত এই পরিসংখ্যানকে সাথে নিয়েই আগামীকাল ভোট হতে চলেছে ওই ৪৪টি কেন্দ্রে।

২০১৬-য় এই ৪৪টি আসনে তৃণমূল ৪৬.০২, বিজেপি ১২.১৩ এবং বাম-কংগ্রেস জোট (২৮.৭৯+৬.৭১) ৩৫.৫ শতাংশ ভোট পেয়েছিল। কিন্তু ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের ফল বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, তৃণমূলের ভোট কিছুটা কমে হয় ৪৪.৭৩ শতাংশ। বিজেপি-র বেড়ে হয় ৪০.৮৮ শতাংশ। আর বামেরা ৯.৬৩ এবং কংগ্রেস ১.৮৮ শতাংশ ভোট পায়। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, এবারের ভোটে এই ভোটবৃদ্ধির হার ধরে রাখাই পদ্ম শিবিরের কাছে সবথেকে বড় চ্যালেঞ্জ।

উল্লেখ্য, গত ৩ দফা ভোট মূলত হয়েছে দক্ষিণবঙ্গে এবং কিছুটা পশ্চিমাঞ্চলে। চতুর্থ দফাতেই প্রথম ভোট হতে চলেছে উত্তরবঙ্গে। ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটে কোচবিহার জেলায় ৯টি আসনের মধ্যে ৮টি আসনেই জিতেছিল তৃণমূল। ১টি (কোচবিহার উত্তর) পেয়েছিল বাম শরিক ফরওয়ার্ড ব্লক। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটের বিধানসভা ভিত্তিক ফল বলছে, বিজেপি সেখানে ৭ এবং তৃণমূল মাত্র ২টি কেন্দ্রে এগিয়ে। উত্তরবঙ্গের আর এক জেলা আলিপুরদুয়ারের ৫টি বিধানসভা আসনের মধ্যে ২০১৬ সালে তৃণমূল জিতেছিল ৪টিতে। আর মাদারিহাট গিয়েছিল বিজেপি-র খাতায়। কিন্তু তিন বছর পরে লোকসভা ভোটে সব ক’টি আসনেই এগিয়ে যায় বিজেপি।

অবশ্য তৃণমূলের ‘ঘাঁটি’ হিসাবে পরিচিত দক্ষিণ ২৪ পরগনায় তিন বছরের মধ্যে পরিবর্তনের চোরাস্রোত একফোঁটাও দেখা যায়নি। চতুর্থ দফায় ভোট হতে যাওয়া ১১টি আসনের মধ্যে ১০টিতে ২০১৬-য় জিতেছিল তৃণমূল। কলকাতা পুর এলাকার অন্তর্গত টালিগঞ্জ, কসবা, বেহালা পূর্ব, বেহালা পশ্চিমের পাশাপাশি ভাঙড় এবং বজবজ বিধানসভার মতো গ্রামীণ আর আধাশহরও ছিল এই তালিকায়। একমাত্র যাদবপুর কেন্দ্রটি চলে গিয়েছিল সিপিএমের দখলে। তবে ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে সব ক’টি আসনেই তৃণমূল এগিয়ে রয়েছে। এবার ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ফলাফল কি হয়, সেদিকেই তাকিয়ে থাকবে রাজ্যবাসী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here